মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সিটিজেন চার্টার

ভূমিকাঃস্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় স্থানীয় সরকার বিভাগের অধীনে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলজিইডি) স্থা্নীয় সরকার প্রতিষ্ঠান সমূহকে কারিগরি সহায়তা প্রদান, পল্লী ও শহরাঞ্চালের অবকাঠামো উন্নয়ন ও রক্ষনাবেক্ষণসহ ক্ষুদ্রকার পানি সম্পদ উন্নয়নের মাধ্যমে দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশে গ্রামীণ এলাকার অবকাঠামো ছিল অত্যান্ত নাজুক। আজ এলজিইডির মাধ্যমে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে দেশের সর্বত্র গ্রামীণ যোগাযোগের ক্ষেত্রে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। আজ গ্রামের উৎপাদিত ফসল বাজারজাত করন ও পরিবহন সুবিধা বৃদ্ধি পেয়ে কৃষকদের উৎপাদিত নায্য মূল্যে প্রাপ্তি নিশ্চিত হচ্ছে। এছাড়াও পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষন ও দরিদ্র বিমোচনের লক্ষে সরকারের জাতীয় কর্মসূচী বাস্তবায়নেও এলজিইডির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার সহায়তায় এলজিইডি বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে।

 

 

সিটিজেন চার্টার হল সেবা পাওয়ায় অধিকারের লিখিত সনদঃএর মাধ্যমে জনসাধারণের আশা আকাঙ্খার প্রতিপালন ঘটিয়ে বিদ্যমান সেবাসমূহের মান উন্নয়নের সুযোগ সৃষ্টি হয়। সিটিজেন চার্টারের মাধমে সেবা গ্রহনকারীদের যথাসময়ে সেবা প্রদান নিশ্চিত করা হয়। সেবা প্রদানকারী কর্তৃপক্ষের কর্মকান্ডের সচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও প্রশাসনের গতিশীলতা বৃদ্ধি পায় । সিটিজেন চার্টারের মাধ্যমে সেবা গ্রহনকারীর মধ্যে পারস্পারিক আস্থা বৃদ্ধি পায়।

 

 

এলজিইডির মুখ্য দায়িত্বাবলীঃ

 

·        পল্লী অঞ্চলে অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে পরিকল্পনা প্রণয়ন, বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ।

·        পল্লী অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ।

·        গ্রোথ সেন্টার হাটবাজার উন্নয়নে পরিকল্পনা প্রণয়ন, বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ।

·        ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা পরিষদ ও পৌরসভাকে কারিগরী সহায়তা প্রদান ।

·        ইউনিয়ন, উপজেলা, পৌরসভা প্লানবুক, ম্যাপিং ও সড়ক এবং সামাজিক অবকাঠামের ডাটাবেজ প্রস্ত্তত করণ।

·        ক্ষুদ্রাকার পানি সম্পদ উন্নয়ন পরিকল্পনা, বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ।

·        বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অবকাঠামো উন্নয়ন কর্মসূচী বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ।

·        জনপ্রতিনিধি, উপকারভোগী, ঠিকাদার , চুক্তিবদ্ধ শ্রমিক দল সমূহের সংশ্লিষ্ট উন্নয়ন কর্মকান্ডে প্রশিক্ষণ।

·        ডিজাইন ও অন্যান্য কারিগরী মডেল, ম্যানুয়েল ও স্পেসিফিকেশন প্রণয়ন।

·        এলজিইডির কর্মকর্তা/ কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি

 

 

এলজিইডির প্রাপ্ত ওযারী প্রধান প্রধান কর্মকান্ডঃ

 

গ্রামীণ অবকাঠামো গুলোঃ

 

·        সড়ক নির্মান/পূর্ণনির্মান/পূর্ণবাসন

·        ব্রিজ/ কালভাট নির্মান/ পূণনির্মান

·        গ্লোথ সেন্টার/ হাটবাজার উন্নয়ন

·        ঘাট/ জেটি নির্মান

·        ইউনিয়ন পরিষদের ভবন নির্মান

·        উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন নির্মান/ পূর্ন নির্মান

·        ঘূর্নিঝড় / বন্যা আশ্রয় কেন্দ্র নির্মান / পূর্ন নির্মান

·        বৃক্ষরোপন কর্মসূচী

·        ক্ষুদ্র ঋণ কর্মসূচী

·        কৃষি, মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ উন্নয়ন

·        অবকাঠামো রক্ষাণাবেক্ষণ

 

ক্ষুদ্রকার পানি সম্পদ উন্নয়ণ

 

·        বাঁধ নির্মান

·        স্লাইচ গেট নির্মান

·        খাল খনন ও পূর্ণ খনন

·        বন্যা নিয়ন্ত্রন, বাধ নির্মান/পূর্ণ নির্মান

·        স্থানীয় পানি ব্যাপস্থাপনা সমবায় সমিতিকে (পবসস) বিভিনণ কারিগরী ও জীবিকা উন্নয়নে সহায়তা প্রদান।

 

এলজিইডির প্রশাসনিক স্তরঃ

 

এলজিইডি বিস্তৃত কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য নিম্ন বর্ণিত উপায়ে প্রশাসনিক নেটওর্য়াক সারদেশে বিস্তৃত আছে ;

 

Ø        এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলী দাপ্তরিক প্রধান হিসাবে আগারগাঁও, শেরে বাংলা নগর , ঢাকা -১২০৭ অবস্থিত সদর দপ্তরে এলজিইডি  দপ্তর পরিচালনা করছেন। তাছাড়া সদর দপ্তরে ৪ জন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী, ৭ জন তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী, ১৭ জন নির্বাহী প্রকৌশলী সহ মোট ১৪৬ জন কর্মকর্তা কর্মচারী  বিভিন্ন ইউনিটে কর্মরত আছেন।

 

সদর দপ্তরে এলজিইডির কর্মকান্ড নিম্ন বর্ণিত ইউনিটের মাধ্যমে সম্পন্ন হয়ে থাকেঃ

 

·        প্রশাসন।

·        পরিকল্পনা।

·        ডিজাইন।

·        সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা (IMRM)।

·        পরিবেশ ব্যবস্থাপনা।

·        মনিটরিং ও মূল্যায়ন।

·        ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (MIS)।

·        জি আই এস (জিওগ্রাফিক্যাল ইনফরমেশন সিস্টেম)।

·        নগর ব্যবস্থাপনা।

·        মাননিয়ন্ত্রন।

·        প্রশিক্ষণ।

·        রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থাপনা।

·        সড়ক নিরাপত্তা।

·        ক্রয় কার্যক্রম (Procucrement)।

·        তথ্য ইউনিট।

 

 

·        এলজিইডির কর্মকান্ড সারাদেশে ১৪ টি অঞ্চল ঢাকা, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, সিলেট, বগুড়া, ময়মনসিংহ, যশোর, ফরিদপুর, রংপুর, খুলনা, দিনাজপুর, বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলের মাধ্যমে বিস্তৃত। প্রতিটি অঞ্চলের দায়িত্বে রয়েছেন একজন তত্ত্ববধায়ক প্রকৌশলীর অধীন নির্বাহী এবং সহকারী প্রকৌশলী সহ মোট ৮ জন কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে-যারা অঞ্চলের আওতাভুক্ত জেলার ন্যস্ত প্রশাসনিক দায়িত্বসহ এলজিইডির কর্মকান্ড মনিটরিং ও তদারকী করে থাকেন।

 

·        ৬৪ জেলার প্রতিটি জেলা সদরে নির্বাহী প্রকৌশলীর নেতৃত্বে ২ জন সহকারী প্রকৌশলীসহ মোট ১৩ জন কর্মকর্তা/কর্মচারী জেলার সকল এলজিইডির কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন। তাছাড়া বৃহত্তর জেলায় ১ জন মেকানিক্যাল প্রকৌশলী রয়েছেন।

 

·        ৪৮২ টি উপজেলার প্রতিটিতে উপজেলা প্রকৌশলীর নেতৃত্বে সহকারী উপজেলা প্রকৌশলীসহ মোট ১৯ জন কর্মকর্তা/কর্মচারী উপজেলা পরিষদের উন্নয়ন কর্মকান্ড ও রক্ষণাবেক্ষণ কর্মকান্ড পরিচালনাসহ এলজিইডির কর্মকান্ড পরিকল্পনা ও তদারকীতে নির্বাহী প্রকৌশলীকে সহযোগীতা করে থাকেন।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter